খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না : মেডিকেল বোর্ড

0
113

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছে তাঁর চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ড। আগামীকাল বুধবার তাঁকে নতুন চিকিৎসক দেখবেন বলেও জানিয়েছে তারা।

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. জিলন মিঞা সরকার এনটিভি অনলাইনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ডা. জিলন মিঞা সরকার বলেন, ‘আমি আজকে খালেদা জিয়াকে দেখেছি। উনার রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ কন্ট্রোল করা যাচ্ছে না। হাসপাতালে ভর্তির আগের দিন জেলখানাতে পরীক্ষার সময় দেখেছি রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ ১১ ছিল। কিন্তু আজ দুপুরে খাওয়ার পরে পরীক্ষা করে দেখেছি মাত্রাটা ১৪তে গিয়ে ঠেকেছে।’

মেডিকেল বোর্ডের প্রধান বলেন, ‘ডায়াবেটিসের জন্য আমি অ্যান্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো ফরিদ উদ্দিনকে রেফার করেছি। আগামীকালকে খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস পরীক্ষা করবেন ফরিদ সাহেব। কাল থেকে ডায়াবেটিসের নতুন ওষুধ দেওয়ার জন্য আমরা সুপারিশ করেছি।’

খালেদা জিয়ার রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়মিত ১১ পয়েন্টের মতো থাকছে বলে জানিয়েছেন জিলন মিঞা সরকার। তিনি বলেন, ‘এছাড়া জয়েন্টের (হাড়) ব্যাপারে আগে যেমন দেখেছি এখনো তেমনই আছে। যেটা ভালো না, আবার খারাপও না। আর বাতের সমস্যাও আগে যেমন ছিল, তেমন আছে।’

মেডিকেল বোর্ডের চেয়ারম্যান আরো বলেন, ‘উনার চোখের একটু সমস্যা আছে। আজকে চোখ একটু লাল লাল দেখেছি। সেজন্য চক্ষুবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল খালেককে রেফার করেছি। উনি আগামীকাল দেখবেন। এ ছাড়াও একজন ডায়েটিশিয়ান উনাকে দেখবেন।’

খালেদা জিয়া তাঁর নিজের শরীর সম্পর্কে আজকে আপনাদের কী বলেছেন-এমন প্রশ্নে ডা. জিলন মিঞা সরকার বলেন, ‘বলেছেন, শরীর একটু দুর্বল। তবে ভর্তি হওয়ার আগের চেয়ে তিনি ভালো আছেন। কারণ হচ্ছে উনি আজ ঘুমিয়েছেন বেশি। উনি একটু ঘুমের ওষুধ খান তো। আজ আমি এবং খালেদা জিয়ার পছন্দের দুই চিকিৎসক তাঁকে দেখেছি। আগামীকাল আবার আমরাসহ নতুন চিকিৎসকেরা তাঁকে দেখব। নতুন ওষুধ দিলে বা খেলে হয়তো কিছু ফল আসবে বলে আশা করছি।’

গতকাল সোমবার দুপুর পৌনে ১টায় ঢাকার পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে নেওয়া হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here