ঢাকা-বুড়িমারী বাণিজ্যিক ট্রেন চালু মঙ্গলবার। সহজে যাওয়া যাবে দার্জিলিং ও ভুটান

0
29

একাধিক নতুন ট্রেন সার্ভিস চালুর উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে চালু হতে যাচ্ছে ঢাকা-বুড়িমারী রুটে নতুন ট্রেন সার্ভিস। আগামী ১২ মার্চ ট্রেন চলাচলের জন্য উদ্বোধন করা হবে। উদ্বোধনের পরপরই ঢাকা-বুড়িমারি রুটে বাণিজ্যিকভাবে ট্রেন পরিচালনা করা হবে। অপরদিকে ঢাকা-কক্সবাজার রেলপথে আরও তিন জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রুটে কমিউটার ট্রেন চালু করা হবে। এছাড়া ঢাকা হতে নরসিংদী এবং ভাঙ্গা হতে ঢাকা-টঙ্গী পর্যন্ত কমিউটার ট্রেন অতি শিগগিরই চালু করা হবে বলে জানা গেছে।
রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ থেকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং ঘুরতে যেতে বেশির ভাগ পর্যটক লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর ব্যবহার করেন। বুড়িমারী স্থলবন্দর লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার শেষ সীমান্ত পয়েন্ট। ওপারে ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর ব্যবহার করে দার্জিলিং যেতে হয়। আবার ভুটান যেতে পর্যটক ও ব্যবসায়ীদের বুড়িমারী স্থলবন্দর ব্যবহার করতে হয়। এ কারণে প্রতিদিন ঢাকা থেকে বুড়িমারী পর্যন্ত যেতে সড়কপথে পরিবহন বাসই একমাত্র ভরসা। তবে ঢাকার কমলাপুর থেকে ‘লালমনি এক্সপ্রেস’ নামে একটি আন্তঃনগর ট্রেন লালমনিরহাট পর্যন্ত যায়। লালমনিরহাট থেকে বুড়িমারী পর্যন্ত প্রায় ১০০ কিলোমিটার সড়কপথে যেতে প্রায় তিন ঘণ্টা সময় লাগে। এখন ঢাকা-বুড়িমারী বাণিজ্যিক ট্রেন চালু হলে লালমনিরহাট থেকে বুড়িমারী সময় লাগবে মাত্র পৌনে এক ঘণ্টা। সাধারণ মানুষের চলাচলও বৃদ্ধি পাবে বলে রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা আশা প্রকাশ করেছেন। রেল মন্ত্রণালয় জানায়, বুড়িমারী স্থলবন্দর লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার শেষ সীমান্ত পয়েন্ট। এ কারণে প্রতিদিন ঢাকা থেকে বুড়িমারী পর্যন্ত যেতে সড়কপথে পরিবহন বাসই একমাত্র ভরসা। তবে ঢাকার কমলাপুর থেকে ‘লালমনি এক্সপ্রেস’ নামে একটি আন্তঃনগর ট্রেন লালমনিরহাট পর্যন্ত যায়। গতকাল শনিবার রেল ভবনে ‘ বাংলাদেশ রেলওয়ে : পরিচালন ও উন্নয়ন’ বিষয়ক কর্মশালা থেকে এসব তথ্য জানা যায়।
রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. জিল্লুল হাকিম বলেন, জনগণের চাহিদা অনুযায়ী রেলকে স্বয়ংসম্পূর্ণ ও গতিশীল করে এর সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী রেলকে জনবান্ধব পরিবহনে পরিণত করে প্রত্যেক জেলায় রেল সেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য কাজ করছি।

রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. কামরুল আহসান বলেন, সারা দেশে ৫৫টি জেলা রেল চলাচল যুক্ত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ৫৯টি জেলায় দ্রুত রেল যুক্ত হবে। তিনি জানান, খুলনা হতে মোংলা পর্যন্ত ৬৩ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ১৫ মার্চ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নবনির্মিত এ রেলপথ, বাংলাদেশ রেলওয়ের নিকট হস্তান্তর করা হবে বলে মহাসচিব জানান। তিনি জানান, এ রেলপথ নির্মাণের ফলে ঢাকা হতে মোংলা পোর্টের সঙ্গে সরাসরি রেলযোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে। এছাড়া আগামী এপ্রিলে খুলনা-মোংলা রেলপথে ট্রেন চলাচলও শুরু হবে বলে মো. কামরুল আহসান জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here