নয়াপল্টনে ছাত্রদল-পুলিশ সংঘর্ষ, বিএনপি নেতা মজনুসহ আটক ২০

0
93

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও পুলিশ লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এতে বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হন। এসআই রেজাউল ইসলামসহ কয়েকজন পুলিশও আহত হয়। পরে ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনুসহ ছাত্রদলের অন্তত ২০ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

সংঘর্ষের পর সন্ধ্যা থেকে বিপুল সংখ্যক পুলিশ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় অবরুদ্ধ করে রেখেছে। কার্যালয়ের ভেতর আটকে পড়েছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরব, সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, নুরুল ইসলাম নয়ন,স্বেচ্ছাসেবক দলের আব্দুল কাদের জুয়েল, সাইফুল ইসলাম ফিরোজ প্রমুখ।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় ছাত্রদলের একটি মিছিল বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দিয়ে নাইটিঙ্গেল মোড়ের দিকে অগ্রসর হলে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এ সময় ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের বাকবিতণ্ডা হয়। পরে শুরু হয় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ও কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেছেন, পুলিশ তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে বাধা দিয়েছে।

পল্টন থানার ওসি সালাউদ্দিন মিয়া জানান, থানা পর্যায়ের ছাত্রদলের কর্মী সমাবেশ ছিল। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই হঠাৎ করে ছাত্রদলের বেশ কয়েকজন বিএনপি অফিসের সামনের রাস্তা অবরোধ করে মিছিল বের করে। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় এবং সেখানে থাকা অল্প সংখ্যক পুলিশ সদস্য তাদের মিছিল করতে নিষেধ করেন। কিন্তু তারা কোনো কথা না শুনে বিভিন্ন দিক থেকে পুলিশের উপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। হামলায় পল্টন থানার এসআই রেজাউল ইসলামের মাথা ফেটে যায় এবং সহকারী কমিশনার আবুল হাসানসহ পাঁচজন পুলিশ সদস্য আহত হন। এই অবস্থায় পুলিশ লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস ছুঁড়ে করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং ঘটনাস্থল থেকে অন্তত ১০ জনকে আটক করেছে।

সহকারী কমিশনার আবুল হাসান জানান, কারণ ছাড়াই বিনা উস্কানিতে বিএনপি, ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here