পাবনা-সিরাজগঞ্জের খামারি ও ব্যাপারিরা লক্ষাধিক হাইব্রিড অবিক্রিত গরু নিয়ে চরম বিপাকে

0
21

শফিউল আযম, পাবনা থেকে সংবাদদাতা ঃ
পাবনা-সিরাজগঞ্জ অঞ্চলের গো-খামারী, চাষি, মওসুমি ব্যবসায়ী ও ব্যপারিদের মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে কোরবানির ঈদে গরু বিক্রি কম হওয়ায় ব্যাপক লোকসান হয়েছে। দেশি জাতের ছোট ও মাঝারি গরু বিক্রি হয়েছে বেশি। এ অঞ্চলে ক্রস হাইব্রিড জাতের গরু বেশি লালন-পালন করা হয়। নৌ ও সড়ক পথে অবিক্রিত গরু নিয়ে আসছেন খামারি ও গরু ব্যবসায়ীরা। তারা অবিক্রিত বিশেষ করে হাইব্রিড জাতের গরু নিয়ে তারা চরম বিপাকে পড়েছেন। অনেক গরু ব্যবসায়ী খামারি ও চাষিদের পাওনা টাকা পরিশোধ না করতে পেরে পালিয়ে ফিরছেন বলে জানা গেছে।
কোরবানির ঈদ উপলক্ষ্যে গবাদিপশু সমৃদ্ধ পাবনা-সিরাজগঞ্জ অঞ্চলের গো-খামারী, চাষি, মওসুমি ব্যবসায়ীরা প্রায় সাড়ে ৩ লাখ গরু লালন-পালন করেছিলেন। তারা প্রায় আড়াই লাখ গরু ঢাকা, সিলেট, চিটাগাং, নারায়নগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় পাঠিয়ে ছিলেন। দেশি জাতের ছোট ও মাঝারি সাইজের গরু চাহিদার সাথেই বিক্রি হয়েছে। হাইব্রিড জাতের বিশেষ করে দুই থেকে ছয় লাখ টাকা দামের গরুর চাহিদা ছিল না। বিক্রি হয়েছে খুবই কম। প্রায় লক্ষাধিক গরু বিক্রি করতে না পেরে খামারি ও ব্যবসায়ীরা ফেরত নিয়ে এসেছেন।
এ অঞ্চলের বেড়া, সাঁথিয়া, সুজানগর, আটঘড়িয়া, ঈশ্বরদী, ফরিদপুর, ভাঙ্গুড়া, চাটমোহর, শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া, তাড়াশ. চৌহালী, কামারখন্দ উপজেলার খামারি, চাষি ও মওসুমি ব্যবসায়ীরা ক্রস জাতের পাবনা ব্রিড, অষ্ট্রেলিয়ান-ফ্রিজিয়ান ব্রিড, ইন্ডিয়ান হরিয়ান ব্রিড, পাকিস্তানি সাহিয়াল ব্রিড ও দেশি জাতের গরু লালন-পালন করেন। সারা দেশে এ অঞ্চরের গরুর খ্যাতি ও চাহিদা রয়েছে। কিন্তু এবার দেশে মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে কোরবানীর পশুরহাটগুলোতে ক্রস হাই ব্রিড জাতের গরু চাহিদার তুলনায় সরবরাহ বেশি থাকায় গরুর দরপতনে এ অঞ্চলের প্রায় ৭০ হাজার গরুর ব্যাপারি ও খামারি মূলধন হারিয়ে পথে বসেছেন। তবে মওসুমি গরু ব্যবসায়ীরা এবার সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন।
গবাদিপশু সমৃদ্ধ পাবনা-সিরাজগঞ্জ অঞ্চলের খামারি ও চাষিরা জেলার চাহিদা মিটিয়ে প্রায় আড়াই লাখ কোরবানির পশু দেশের বিভিন্ন হাটে সরবরাহ করেছিলেন। গরু ব্যবসায়ীরা খামারি ও চাষিদের কাছ থেকে নগদ-বাঁকীতে গরু কিনে বিক্রির জন্য সড়ক ও নৌপথে ঢাকা, সিলেট, চিটাগাংসহ বিভিন্ন জেলার পশুরহাটে নিয়ে যায়। চাহিদার তুলনায় গরুর সরবরাহ বেশি থাকায় ঈদের দুই দিন আগে দেশের বিভিন্ন পশুরহাটে গরুর দাম কমে যায়। এতে অনেক ব্যবসায়ী ও খামারি বাধ্য হয়ে লোকসান দিয়ে গরু বিক্রি করেছেন। এদিকে ঈদের তিনদিন আগে ঢাকার পশুরহাটগুলোতে গরুর সঙ্কট দেখা দেয়। এ খবরে ব্যাপারিরা রাতারাতি অনেক গুরু কিনে ট্রাকে কওে সড়ক পথে ঢাকা গরু পাঠায়। জ্যামে ট্রাক আটকে পড়ায় ঈদের দিন সকালে ট্রাক ঢাকা পৌঁছায়। কিছু কিছু গরু বিক্রি হলেও অনেকেই বিক্রি করতে না পেরে গরু ফেরত নিয়ে এসেছেন।
সিরাজগঞ্জ উপজেলার রাউতরা গ্রামের আহম্মদ উল্লাহ বললেন, গতবছর ঈদের আগে বিভিন্ন জেলার ব্যাপারিরা খামারি ও চাষিদের বাড়ি থেকে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া কিনে তারা ট্রাক ভতি করে নিয়ে যেত। এবার করোনা ভাইরাস এর কারণে দুর-দুরান্ত থেকে ব্যাপারিরা গরু কিনতে আসেন নাই। মানুষের আর্থিক অবস্থা ভাল না। গরু বিক্রি করতে না পারায় সংসার চালানো নিয়ে তিনি কঠিন সমস্যায় পড়েছেন বলে জানিয়েছেন। একাধিক গরু ব্যবসায়ী ও খামারির বলেছেন, একদিকে মহামারি করোনা ভাইরাস ও বন্যা অন্যদিকে হাটে চাহিদার চেয়ে সরবরাহ বেশি হওয়ায় ঈদের দেড় মাস আগে থেকেই গরুর দাম ব্যাপকভাবে কমে যায়। ট্রাক ও নৌকার ভাড়াসহ পথ খরচ উঠানোর জন্য ব্যবসায়ী ও খামারিরা লোকসান দিয়ে গরু বিক্রি করেছেন।
শাহজাদপুর উপজেলার বিনুটিয়া গ্রামের আতাউল গনি হাইব্রিড জাতের ১০টি গরু গাবতলীর হাটে তুলেছিলেন। একেকটি গরু কিনে ছিলেন। চার লাখ থেকে ছয় লাখ টাকার মধ্যে। বিক্রি করেছেন মাত্র একটি গরু। গরুটির দাম পড়েছিল সাড়ে চার লাখ টাকা, পথ খরচের জন্য বাধ্য হয়ে তিন লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন। মহাজনের ঋণের টাকা কিভাবে পরিশোধ করবেন এই চিন্তায় তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানান।
বেড়া উপজেলার নতুনপাড়া গ্রামের হায়দার আলী ঢাকার গাবতলী পশুরহাটে ৭০টি গরু তুলেছিলেন। এরমধ্যে ৩৫টি গরু ১৫ লাখ টাকা লোকসান দিয়ে বিক্রি করেছেন। অবিক্রিত অবশিষ্ট ৩৫টি গরু ফেরত নিয়ে এসেছেন। একই গ্রামের মন্টু ব্যাপারির ৪৩টি গরুর ২১টি বিক্রি হয়েছে, ২২টি ফেরত নিয়ে এসেছেন। তার লোকসান হয়েছে প্রায় ৭ লাখ টাকা। নদী পাড়ের সোলেমান ব্যাপারির ১০৫টি গরুর মধ্যে ৫৫টি বিক্রি হয়েছে। অবিক্রিত ৫০টি গরু ফেরত নিয়ে এসেছেন। তার লোকসান হয়েছে প্রায় ১৩ থেকে ১৪ লাখ টাকা।
বেড়া উপজেলার রাকশা গ্রামের কালা ব্যবসায়ী ৮টি গরু বিক্রি করে এক লাখ টাকা, হাতিগাড়া গ্রামের আকরাম ও আলতাফ ব্যবসায়ী লোকসান দিয়ে গরু বিক্রি করেছেন। সাঁথিয়া উপজেলার সেলন্দা গ্রামের খামারি রজব আলী হাইব্রিড জাতের ২০টি গরু চট্রগ্রাম হালিশহর হাটে নিয়েছিলেন। তার ৮টি গরু বিক্রি হয়েছে। অবিক্রিত ১২টি গরু অনেক কষ্ট করে ফেরত নিয়ে এসেছেন। তার লোকসান হয়েছে প্রায় ৫ লাখ টাকা। পাবনা জেলার দুই সহ¯্রাধিক গরু ব্যবসায়ী ও খামারি প্রত্যেকের ৫০ হাজার থেকে ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত লোকসান হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।
এদিকে অনেক খামারি বাঁকী টাকা না পাওয়ার আশঙ্কায় ব্যাপারিদের কাছ থেকে গরু ফেরত নিয়ে যাচ্ছেন। আবার অনেক ব্যাপারি খামারী ও চাষিদের পাওনা টাকা পরিশোধ করতে না পেরে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন বলে তাদের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here